Wednesday, January 30, 2019

মুভি লাভারদের জন্য কিছু ওয়েবসাইট।Tops5 movie website

মুভি লাভারদের জন্য কিছু ওয়েবসাইট [New Movies website 2019[
এই সাইট গুলো থেকে কম এমবি মাধ্যমে ফুল HD ইকুয়ালিটি মুভি ডাউনলোড করতে পারবেন।
১।আজ আমি তোমাদের সামনে যে মুভি ওয়েবসাইট শেয়ার করবো তাহলে শুরু করা যাক।
২। আমি যে মুভি সাইট শেয়ার করবো সেই ওয়েবসাইট মাধ্যমে কম এমবি দিয়ে ফুল HD ইকুয়ালিটি মুভি ডাউনলোড করতে পারবেন।
৩। মুভি সাইটগুলো খুবই ভাল সাইট যে ওয়েবসাইট কথা না বললেই না ।
মুভি লাভারদের জন্য খুবই ভাল সাইট সেখান থেকে নতুন নতুন মুভি পাওয়া যাবে ।
নতুন নতুন মুভিপেতে নিভে ওয়েবসাইটগুলো ফলো করুন
ScreenShot গুলো ফলো কর।

Saturday, January 26, 2019

(Tp-link wifi)কানেক্ট করা ওয়াইফাই এর পাসওয়ার্ড দেখে নিন ১০০% কাজ হবে

আসসালামু আলাইকুম
.
.
.কেমন আছেন সবাই? আশা করি সবাই ভালই আছেন,আমিও আল্লাহর রহমতে ভালই আছি
.
.
.
আমি  সজীব
,
আজকে আপনাদের আমি দেখাবো যে কিভাবে কানেক্টেড করা ওয়াই ফাই এর পাসওয়ার্ড দেখবেন।
,
অনেক সময় আমাদের কানেক্ট করা ওয়াইফাই এর পাসওয়ার্ড দেখার প্রয়োজন পরে।
,
যেমন আপনি যদি ফোন রেসেট দেন তাহলে পাসওয়ার্ড গুলা আবার দিতে হয়।
,
ওয়াইফাই এর মালিক বার বার পাসওয়ার্ড না দিতে পারে তাই দেখার প্রয়োজন পরে।


.
.

অনেকেই হয়তো এটা জানেন।যারা জানেন না তাদের জন্যই পোস্ট টা।


.
.তো চলুন শুরু করা যাক,,,
,
,
,প্রথম এ এপটি ইন্সটল করে নেন।অবশ্যই ওল্ড ভারশন,,,

App name: Tp Link Tether
,
,
,আশা করি সবাই এপ টা নামিয়ে নিতে পারবেন
,
,
, তারপর যে ওয়াইফাই টির পাসওয়ার্ড দেখতে চান সেটি কানেক্ট করুন
,
,তারপর এপ ওপেন করুন।পারমিশন চাইবে এলাউ করে দেন।এখন স্ক্রিনশট ফলো করুন

.
.Management অপশন এ জান।
.
.
.
. তারপর Wireless এ যান।
.
.
.
.তারপর ওয়াইফাই এর নাম শো করবে তাতে ক্লিক করুন।
.
.
.
.তারপর দেখুন Security লেখা এর নিচে পাসওয়ার্ড শো করছে।
.
.
আশা করি সবাই বুঝতে পেরেছেন।
,
,আজকে এই পর্যন্তই রইল।
, ভাল লাগলে কমেন্ট করে জানাবেন।
,
,তাতে আমাদের আগ্রহ বাড়বে।
আল্লাহ হাফেজ
,
সবাই ভাল থাকবেন।
,
আর সবাই আল্লাহর এবাদতে সময় দেয়ার চেষ্টা করবেন

Friday, January 18, 2019

নিয়ে নিন কিছু জনপ্রিয় BDIX servers এর লিস্ট , ডাউনলোড স্পীড ১Mb-20Mb+

আসসালামু আলাইকুম । সবাইকে জুম্মার শুভেছা । আজকে একটি মজার এবং গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নিয়ে আপনাদের সামনে হাজির হলাম । আশা করছি কিছুটা ভালো এবং নতুন বিষয় নিয়ে আপনাদের সামনে উপস্থাপন করতে পারবো।
বর্তমানে ইন্টারনেট আমরা সবাই চালাই । বিভিন্ন এলাকায় নেট সার্ভিস বিশেষ করে ব্রডব্যান্ড নেট সার্ভিস এর সহজলভ্য প্যাকেজ এর কারনে অনেকেই মডেম এর চেয়ে ব্রডব্যান্ড ব্যাবহারের প্রতি বেশি ঝুঁকে পড়ছে । এর প্রধান কারন গুলো হল
১ ভালো স্পীড
২ কম খরচে ২৪ ঘণ্টা নেট চালানোর সুবিধা
৩ ডাউনলোড সার্ভার এর সুবিধা
৪ BDIX Connectivity
উপরের  প্রথম  তিনটি বিষয় সবাই জানলেও  শেষের পয়েন্টটি অনেকের কাছে অপরিচিত লাগতে পারে । আজকের টিউনটি মূলত এই বিষয় নিয়েই ।  চলুন এই বিষয়টি সম্পর্কে কিছু জানার চেষ্টা করি।

BDIX  কি ?

BDIX এর পূর্ণরূপ হল  Bnagladesh Internet Servics Exchage . BDIX এক ধরনের ভার্চুয়াল নেটওয়ার্ক তৈরি করে যার মাধ্যমে আপনি খুব সহজেই তাদের সার্ভার থেকে যে কোন ফাইল অনেক কম সময় অনেক দ্রুত গতিতে ডাউনলোড করতে পারবেন ।
এ ক্ষেত্রে আপনার নরমাল নেট এর স্পীড যাই হোক না কেন আপনি তার চেয়ে অনেক বেশি পরিমাণ ডাউনলোড স্পীড পাবেন । একটি সহজ উদাহরন  এর মাধ্যমে বিষয়টি ব্যাখ্যা করছি । মনে করুন আপনি X provider এর ব্রডব্যান্ড নেট চালান । আপনার লাইন হল ১ এমবি স্পীড এর যার মানে হল আপনি যে কোন ফাইল average 100kbps speed এ ডাউনলোড করতে পারবেন । এটা হল আপনার নরমাল স্পীড যা আপনাকে X provider আপনাকে দিয়ে থাকে মাসিক চার্জ অনুযায়ী।
যদি আপনার সেই provider এর BDIX connectivity থাকে তাহলে BDIX server গুলো থেকে তার চেয়ে অনেক বেশি স্পীড ফাইল ডাউনলোড করতে পারবেন । সে ক্ষেত্রে যদি ১০ এমবি স্পীড এর কোন BDIX server থেকে আপনি কোন ফাইল ডাউনলোড করেন তাহলে আপনার স্পীড আসবে average e 1Mb যা অবশ্যই যে কোন ইউজার এর জন্য সুবিধাজনক ।
এই হল BDIX servers গুলোর আসল সুবিধা। এ ক্ষেত্রে মজার বিষয় হল কিছু কিছু provider তাদের নিজেদের সার্ভার ছাড়াও কিছু কিছু BDIX সার্ভার এর সাথে connected থাকে যার ফলে ওই সব সার্ভার থেকে তাদের  ইউজার রা হাই স্পীড এ যে কোন ফাইল ডাউনলোড দিতে পারে । এ ক্ষেত্রে কিছু কিছু provider তাদের নিজেদের সার্ভার এ এই সব BDIX connected server এর লিস্ট দিয়ে রাখে আবার অনেক ক্ষেত্রে ইউজার কে এই সব সার্ভার খুজে নিতে হয় নিজের থেকেই । BDIX server এর কিছু বিশেষ সুবিধা গুলো হল
High Data Volume

Saves a lot of money to ISPs and End users

 

New Features and Services

 

Redundancy

 

কিভাবে খুঁজে পাবো এই সব সার্ভার ?

এটা একটা গুরুত্বপূর্ণ বিষয় যে ধরা যাক আপনি BDIX connected যার মানে হল আপনার ব্রডব্যান্ড provider এর BDIX connectivity আছে কিন্তু আপনি সার্ভার গুলোর এড্রেস জানেন না । এখন কি করবেন ? টেনশন নেই আমি নিচে কিছু BDIX servers এর লিস্ট দিয়ে দিচ্ছি । এ ক্ষেত্রে একেক জন একেক সাইট থেকে ভালো স্পীড পেতে পারেন কারন আপনার ব্রডব্যান্ড provider কোন কোন সাইট এর সাথে connected আছে সেটা নিশ্চয়ই আমি জানি না । তাই আমার পরামর্শ হবে যে সব গুলো সাইট আপনি একবার করে check করুন । যে সকল সার্ভার থেকে ভালো স্পীড পাবেন সেই সাইট গুলো আপনি bookmark করে রাখুন । কোন সাইট যদি ব্রাউজার এ না আসে তাহলে বুঝবেন যে ওই সার্ভার আপনার provider এর সাথে connected না । আবার এমন যদি হয় যে কোন সাইট আসলো কিন্তু ডাউনলোড স্পীড নরমাল পাচ্ছেন তাহলে বুঝবেন ওই সার্ভার এখন আপনার provider কে BDIX স্পীড দিচ্ছে না । নিচে কিছু সার্ভার দিয়ে দিলাম আর একটা লিস্ট আপলোড করে দিলাম যারা যারা চান তারা ডাউনলোড করে নিতে পারবেন ।

আপনার provider এর যদি BDIX connected না থাকে তাহলে অনেক ওয়েবসাইট এ প্রবেশ করতে পারবেন না। এবং স্পীড ও বেশি পাবেন না।
Movie Servers
  • https://mozbd.com  [সব থেকে ভাল এই সার্ভার টা]

Thursday, January 17, 2019

কানেক্টেড থাকা ওয়াইফাই সারাজীবন ব্যবহার করুন।পাসওয়ার্ড বদলে ফেললেও ব্যবহার করতে পারবেন।(রুট + আনরুট)

আসসালামু আলাইকুম
আজ আপনাদের দেখাব কিভাবে কানেক্টেড ওয়াইফাই এর সারাজীবন চালাবেন যদি পাসওয়ার্ড চেঞ্জ করে তাহলেও চালাতে পারবেন এর জন্য দুটি অ্যাপ লাগবে নিচের লিনক হতে অ্যাপ দুটি ডাউনলোড করুন।
app-1 app-2
এবার নিচের ss follow করুন:

অধিকাংশ সময় পাসওয়ার্ড আর ইউজারনেম admin থাকে।যদি আপনার কাংখিত ওয়াইফাই এ admin থাকে তাহলে নিচের স্ক্রিনশট ফলো করুন আর যদি আপনার ওয়াইফাই এর পাসওয়ার্ড admin না হয় তাহলে আমি আন্তরিকভাবে দু:খিত

যদি পাসওয়ার্ড চেঞ্জ করে তাহলে app-2 ওপেন করেন আর নিচের স্ক্রিনশট ফলো করুন:





এভাবে যতবার পাসওয়ার্ড চেঙ করবে ততবার আপনি চালাতে পারবেন😂
এই পদ্ধতি টি ১০০% কাজ করে তারপর ও যদি সমস্যা হয় তাহলে কমেন্ট করে জানাবেন
sojib mia

Friday, January 11, 2019

আপনি কি আপনার লাইফে সফল হতে চান? সফল মানুষ হওয়ার পরিপূর্ণ গাইডলাইন!!!


আজকে আমি আমার নিজের কিছু গল্প বলতে এসেছি; এই ট্রিকবিডি আমার নিজের পারসোনাল কনসেপ্ট এক্সপ্লেইন করার প্লাটফর্ম নয় আবার আমি কোন সেলিব্রেটিও নই সুতরাং আমার লেখাটি হয়তো উচিত হচ্ছে না…..তবুও লিখছি যেন লেখাটি পড়ার শেষে আপনার লাইফটা বদলে যায়!!!!
ইউটিউব- গুগলে এমন অনেক কনটেন্ট পাবেন যেখানে লেখা থালে “অমুক ভিডিও বা লেখাটি আপনার লাইফ পাল্টে দিবে” ভিউয়ার-ভিজিটর বাড়ানোর এই সকল ক্লিক আইডিয়ার আড়ালে আসলেই কি আপনার লাইফ পাল্টে যায়???
উত্তরটা হলো “না” কারন আপনার ব্রেইনের পোলারিক ক্যাপাসিটর একটুখানি চার্জ নিয়েই কিছুক্ষণ পর আবার ডিসচার্জ করে দেয় ফলে আপনি যেই লাউ সেই কদু হয়েই থাকেন…লাইফে সফল হওয়া আর সম্ভব হয়ে উঠে না।
লাইফে সফল হওয়ার জন্য মোটেই টাকা পয়সার দরকার নেই বরং দরকার আপনার ব্রাইট ব্রেইনের। এখন অনেক বস্তুবাদী মানুষ প্রতিবাদী হয়ে বলবেন “ধূর মিয়া…টাকা না থাকলে লেকচার আর আতলামী দিয়ে লাইফ বদলায় না” আমি স্পেসিফিকভাবে তাদেরকেই বলছি “টাকা ইনাকাম করতে ব্রেইন লাগে” আপনার ভেতর যদি সেই ব্রেইনের কারিশমা না থাকে তাহলে কোটি টাকাতেও আপনি ক্যারিয়ার গড়তে পারবেন না, ইটস গ্যারান্টেড!!!
আমি গত রাতে আমার তিন মাসের জমানো মাটির ব্যাংক ভেঙ্গে সর্বমোট “আটত্রিশ হাজার একশত চল্লিশ টাকা” পেয়েছি; এই তিনটা মাসে আমি সেই টাকা জমিয়েছি যেটা আমি বাড়তি খরচ করি….একটু অবিশ্বাস্য শোনাচ্ছে তাইনা??
নিশ্চয়ই আপনার মনে হচ্ছে “ব্যাটা হুদাই চাপা দিচ্ছে” নয়তো “আপনার টাকার কথা শুনে আমার কি লাভ, আমি কি আর আপনাকে টাকা দিবো?!!”
হ্যা, সত্যিই আমি আপনাকে টাকা দিবো তবে সেটার আগে আরও কিছু দিতে চাই ; যদি আপনি রাজী থাকেন তাহলে লেটস ফরোয়ার্ড…..
(১)বাজে খরচ কমান:
আপনি হয়তো সারাদিনে দুইটা চা কিংবা কফি অথবা ইয়েটিয়ে টেনে ২০-৩০ টাকাতে দিন চলে যায়; অথচ এই ২০/৩০ টাকাতেই আপনার লাইফ পরিবর্তন সম্ভব, যদি আপনার ব্রেইনের মাঝে নিজেকে সংযত (কৃপণ বলিনি) করার প্রয়াস লাভ করেন।
প্রতিদিন ১০ টাকা করে জমালেও মাসে ৩০০ টাকাতে আপনি ইন্টারনেটে ঘরে বসে অনেক কিছুই করতে পারেন; ইন্টারনেট হলো নিজের আইডিয়াকে সবার সামনে তুলে ধরার একটা ফ্রি ফ্লাটফর্ম।
(২)জমানো টাকা গুনবেন না:
আমরা অনেকেই একটু একটু করে টাকা জমাই আর যখন তা ৫০০ এর ঘর পার হয় তখন আড্ডা নয়তো ভিন্ন বিশেষ কোন পারপাসে ভেঙ্গে খরচ করে ফেলি; তাই জমানো টাকা কখনোই গুনবেন না।
আপনার কাজটা হলো টাকা জমানো তাতে নিজেই যদি বদনজর দেন তাহলে না তো বরকত আর না তো সেই টাকা জমিয়ে ব্রিলিয়্যান্ট কিছু করতে পারবেন।
(৩)টার্গেট নিয়ে এগিয়ে যান:
আপনি যদি মনে করেন “লাইফটা একদিন অটোমেটিক পাল্টে যাবে আর আপনি বড়লোক হয়ে যাবেন” তাহলে আপনার কপালে নিশ্চিত দুঃখ আছে; আপনাকে এখন হতেই আপনার লাইফে ফোকাস করতে হবে।
আপনাকে নিজেকে “ডায়মন্ড” এর মতোই শক্ত আর কঠিন করে গড়ে তুলতে হবে; নয়তো শুধু চকচক করলেই তো আর হীরা হয়ে যায়না।
উপরের আমার মাটির ব্যাংক ভাঙ্গার কথা কেন বলেছিলাম জানেন? কারন এই তিনটা পয়েন্টকে কাজে লাগিয়েই আমি ঐ ৩৮,১৪০ টাকা তিনমাসে জমিয়েছি। এখানে টাকার পরিমান মুখ্য নয় বরং এই তিনটা উপদেশই আসল কথা, তাই উপদেশ তিনটি যে আমাকে দিয়েছিলো তাকেই আমি টাকাটা গিফট করি।
আর এখন আমি আপনাকে লাইফে সফলতার তিনটা উপদেশ দিচ্ছি মন চাইলে শুনতে এবং মানতে পারেন; (১) জ্ঞান অর্জন করুন এবং সেটাকে কাজে লাগান; অব্যহৃত জ্ঞান মস্তিষ্ক অল্প সময়েই ভুলে যায় (২) ধৈর্য্য হারাবেন না, ১ বার না পারলে ১০০ বার চেষ্টা করুন; ১০০ বারেও না পারলে যতোক্ষন পর্যন্ত না সফলতা পাচ্ছেন ততোক্ষণ চেষ্টা করবেন (৩) ফোকাস ঠিক রাখুন; বাঘের মতোন ফোকাস করুন যাতে সামনে যতোই লোভ ললসা আসুক আপনি আপনার লক্ষ্যে অটল থাকবেন তাইলেই আপনি মনের রাজা হতে পারবেন।
সফল মানুষ হওয়ার মূলমন্ত্র:
আপনি যখন আপনার লাইফে নতুন কিছু করতে যাবেন তখন সামনে পিছনে বহু বাধা আসবে, সেগুলি পার করে সফলতার রাস্তা আপনাকেই খুঁজে নিতে হবে। হয়তো আপনার সামনে গাইড বা লীড দেবার মতোন কেউ থাকবে না- আপনার পিছে সবাই আপনাকে নিয়ে হাসি ঠাট্টা করবে….সেসব মাথাতে রাখবেন না, ডান কানে শুনে বাম কানে ফু দিয়ে উড়িয়ে দিবেন।
আপনি এখন আপনার বাবার কাছে গিয়ে বলুন “আব্বা আমি মার্ক জুকারবার্গের মতোন একটা ফেসবুক বানাবো, ডোমেইন- হোস্টিং কেনার টাকা দেন” নিশ্চিত আপনার আব্বা আপনাকে টাকা দেওয়া তো দূরে থাক উল্টে পড়াশোনার উপদেশপূর্বক থাপ্পর নচেৎ নূন্যতম ঝাড়ি দিবেন তাইতো?
কারন আপনার বাবার আপনার যোগ্যতার ওপর ভরসা নেই, অথচ আপনি চাইলেই কিন্তু পিএইচপি দিয়ে অথবা আরও সহজে ওয়ার্ডপ্রেসে বডিপ্রেস হতে এমনি সোস্যাল নেটওয়ার্ক তৈরী করতে পারেন। আগে যোগ্যতা অর্জন করুন, সুযোগ প্রকৃতিগতভাবেই আসবে।
হয়তো আপনি নতুন কিছু করলে আপনার বন্ধু,পাড়া-প্রতিবেশী সবাই মিলে হাসি-ঠাট্টা-নিন্দা করবে; কেন জানেন?
কারন আপনি যেটা করছেন সেটা করার যোগ্যতা তাদের নেই, তাই এমন হাসি ঠাট্ট করেই তারা নিজেদের মনে অজান্তেই প্রবোধ মানায়।
আপনাকে সারা বিশ্ব সম্পর্কে জানতে হবে; যদি মনে করেন আমেরিকার ডোনাল্ড ট্রাম্প পারমাণবিক অস্ত্র নিয়ে কি বলেছে, রাশিয়া তাদের টেকনোলোজির কি আপডেট জানিয়েছে, সিরিয়ার বর্তমান অবস্থা এসব জেনে আপনি কি করবেন?
তাহলে সোজাসাপ্টা “ইউ আর এ কমন ম্যান এন্ড ইউ ডোন্ট ডিসার্ভ সুপার সাকসেস ইন ইউর লাইফ; প্লিজ গেট আউট”।
মনে রাখবেন সফলতার জন্য “তথ্য বা জ্ঞান হলো ব্রেইনের এ্যাসেট; যেখানেই জ্ঞান পাবেন সেখান হতেই টুকে নিবেন”।
নিজেকে নিয়ে কখনোই হীনমন্যতায় ভুগবেন না “আমি তো গরীব/আমাকে দিয়ে কিচ্ছু হবেনা/আমি তো দেখতে কালো/আমি তো জিপিএ ফাইভ পাইনি/আমার তো কোডিং ক্যামনে করে জানি না/আমি ওয়েবসাইট ডেভলপমেন্ট পারি না” এইসব কথাগুলো মাথা হতে ডিলিট করে ফেলুন; এইসব নেগেটিভ-নেগেটিভ কথা আপনার ক্ষতি ছাড়া আর কোন সুফল বয়ে আনবে না।
বাস্তবতা যদি হয় আপনি “জিরো” তবুও মন খারাপ করার কিছু নেই কেননা Zero(0) isn’t Negative at all!!!
“আপনি পারবেন না” এই কথাটি না বলে আপনি “কিভাবে পারবেন” এই প্রশ্নটা করুন।
লাইফে প্রেম করেনি এমন মানুষ খুজে পাওয়া যাবে না; উইলিংলি বলছি আমি করেছি তবে দয়া করে কয়টা করেছি এটা নিয়ে প্রশ্ন করবেন না!!!
কিন্তু রিলেশন মানেই জীবনটা রাঙ্গিন পাংখা হয়ে গেল এমন নয়, আবার ব্রেকআপ হইলোই তো দেবদাস হয়ে যাবেন এমনটাও না!
প্রেম-ভালোবাসা-রিলেশন এগুলা প্রায় সবার জীবনেই আসে, আবার অধিকাংশ চলেও যায়; কিন্তু রিলেশনশীপ যদি আপনার ক্যারিয়ার গড়ার পথে ১ সেকেন্ডের জন্যও বাধা হয়ে দাড়ায় তবে সোজা কথা “বাদ দিয়ে দিন”। যদি একান্তই বিরহ মর্মাহত হন তবে সেসময় সিগারেটের ধোয়ার চেয়ে ডায়েরীতে একটা কবিতা বা গল্প লিখে ফেলুন…. সময়কে সম্ভাব্য সর্বোচ্চ ইফেক্টিভ ওয়্যেতে ইউটিলাইজ করুন।
আমাদের সবার জীবনেই ছোট বড় একটা কালো ইতিহাস আছে; তা যাই হউক সেটার জন্য মন খারাপ করবেন না। জীবনের খারাপ স্মৃতিগুলা মনে আনবেন না, অতীত কখনোই সংশোধন যোগ্য নয় তাই আপনার মন খারাপ করা বোকামী….প্রয়োজনে জোর করে হাসতে শিখুন!
আপনার চেয়ে জুতা পালিশ করা ছেলেটি আরও কষ্টে আছে; আপনার প্লেটে হয়তো কমদামী খাবার অথচ রাস্তার পাশের পথশিশু সেই সময় না খেয়ে শুয়ে আছে….. আপনি জন্মগতভাবে লাকি; সুতরাং মন খারাপ না করে করে আল্লাহর নিকট শুকরিয়া জানান।
আপনার হাতের কাছে যা আছে সেটা দিয়েই আপনাকে নিজের প্রয়োজনীয় জিনিসটি মোডিফাই করে নিতে হবে। আপনার বাপের হোম থিয়েটার কেনার সাধ্যি নেই অথচ আপনি চাইলেই বাড়ীর টিভি আর অল্প কয়টা কম্পোনেন্ট এবং চারটা স্পিকার দিয়ে বানিয়ে ফেলতে পারেন হোম থিয়েটার!
আপনার হয়তো দামী পিসি নেই, আপনি ১৫০০ টাকার ভেতরে রাসবেরি পাই আর কিছু এক্সেসরিজ দিয়ে বানিয়ে ফেলতে পারেন মিনি পকেট কম্পিউটার!
আপনার কক্সবাজার পিকনিক করতে যাওয়ার টাকা নেই, ১০০ টাকার এমবি কিনে দিয়ে ইন্টারনেটে কক্সবাজার লিখে সার্ফ করুন…আমি গ্যারান্টি দিয়ে বলছি ২ দিন ৩ রাতে কক্সবাজারের যতোটা না সৌন্দর্য আপনি দেখতে পারেন, ২ ঘন্টা ইন্টারনেটে আপনি তারচেয়ে বেশী ফ্যান্টাসি পাবেন।
 আনন্দ?? ইটস এ ফিলিস অব হ্যাপিনেস, এখন আয়নাকে ভেংচি কাটল সেও কিন্তু আপনাকে ভেংচি কাটবে।
ভালো মানুষ হউন; আপনার ব্যবহার সুন্দর করুন। মনে রাখবেন আপনার পকেট শূন্য থাকলেও আপনার মিষ্টি ব্যবহার কখনোই আপনাকে অভুক্ত রাখবে না। “ঐ ব্যাটা….তুই আমারে চিনস” টাইপের সস্তা মেন্টালিটি বাদ দিতে হবে। ক্ষমতা কখনো মুখে রাখবেন না, ক্ষমতা কখনো হাতেও রাখবেন না….ক্ষমতা রাখবেন মাথাতে; তাহলেই উইন হতে পারবেন।
লাইফে সকলেরই সমম্যা আছে আর যতোদিন বাঁচবেন সমম্যা থাকবেই সুতরাং সিনেমার শেষ দৃশ্যে “অতঃপর তারা সুখে শান্তিতে বসবাস করতে লাগলো” এমনটি কখনোই হবে না।আপনি যতোদিন বাঁচবেন সমস্যা নিয়েই বাঁচতে হবে এটাইই লাইফ সুতরাং মোটেই প্যানিক হবেন না….পেইনকে টয়লেট প্যানে ফ্লাশ করে দিন; সমস্যা আসলে তাকে এমন লরেন্স সাদরে গ্রহণ করুন “আয় ব্যাটা দেহি….কেডা জিতে”।
মনে রাখুন আপনিই আপনার লাইফের রাজা!!!
লেখার শুরুতে বলেছিলাম যে “আমি টাকা দিবো” কথাটা কিন্তু আমি ভুলিনি; যদি এমন হয় যে আপনাদের এমন কোন প্রজেক্ট বা স্বপ্ন আছে যেটা পূরণ করতে টাকা লাগবে, তখন ইনশাল্লাহ আমি আমার সাধ্যমতো সহায়তা করার চেষ্টা করবো (ইনশাল্লাহ মার্চের পর)তাইবলে এমন নয় যে “কল্পনা করলাম ড্রোন-রোবট বানানো আর কালই দুইটা আর্ডুইনো কিনে এনে সার্কিট পুড়িয়ে ফেললাম” ইউ হ্যাভ টু ওয়েল আইডিয়া-ওয়েল নলেজ-ওয়েল প্লান ওভারঅল ওয়েল মাইন্ড!
আমি কি করি এটা জানতে চাইলে বলবো “কাজ”; কি কাজ সেটা জানতে চাইলে উল্টো আপনাকে আমি কাজের ডেফিনিশন শিখিয়ে দিলাম “সৎ পথে আপনার পরিশ্রমের সর্বোচ্চ ইকোনমিকাল এন্ড সোস্যাল ইফিসিয়েন্সি পান এমনটাই আপনার জন্য পারফেক্ট কাজ”।
যাই হউক অনেক কথায় বললাম; তবে সে সবই মূল্যহীন হবে যদিনা সেগুলি আপনি মনে রেখে নিজের লাইফে ইউটিলাইজ না করেন।
আপনার জীবন পরিবর্তনের চাবি দিয়ে দিলাম….এখনই তালা খুলুন নয়তো দেরী হলে তালাটাই হারিয়ে ফেলবেন!!!

Tuesday, January 8, 2019

মোটিভেশন কি সত্যিই আপনার জীবন পাল্টে দিতে পারে??

আমরা অনেকেই “মোটিভেশন” নামক শব্দটার সাথে কমবেশি পরিচিত; মোটিভেশন জিনিসটাও আসলে চমৎকার!
এই যেমন ধরুন আপনি তিন মাস ধরে জুতার শুকতলা খয়িয়েও একটা চাকুরী না পেয়ে হতাশায় সায়োনাইড বিষ খেতে যাচ্ছেন এমন সময় আমি যদি আপনাকে সফলতার গল্প শুনিয়ে অনুপ্রাণিত করি তাহলে নিশ্চিত আপনার চোখে আমি আইডল কিংবা এ্যঞ্জেল হয়ে যাবো ; ফলশ্রুতিতে আপনি বাজার হতে আরও একজোড়া নতুন জুতা কিনে চাকুরীর আশায় পথে পথে ঘুরবেন….
জীবন বাঁচানো কিংবা হতাশা হতে মুক্তি দেওয়া নিশ্চয়ই মহৎ কাজ তবে রোগের কার্যকর ঔষধ না দিয়ে শুধুমাত্র স্বান্তনা নামক এনাসথেসিয়াতে জীবন স্বার্থক হয়না; অনিয়ন্ত্রিতভাবে এন্টিবায়োটিকও একটা সময় অকার্যকর হয়ে যায়!
বাংলাদেশ এবং মোটিভেশন:
বাংলাদেশে খুব পরিচিত দুই জন মোটিভেশন স্পিকার হলেন সেলাইমান শুখন এবং আইমান সাদিক ( আমি কখনোই বলছি না সোলাইমান শুখন মোটিভেশন নামক মুখোশের আড়ালে অমুক দলের সুবিধাভোগী হয়ে গুণগান গায় কিংবা আইমান সাদিক সাবস্ক্রাইবার বাড়াতে বুজরুকী করেন) আমি বলবো তারা নিজ নিজ অবস্থান হতে সফল মানুষ।
তবে আপনি বিশ্বাস করুন কিংবা না করুন এইসব মোটিভেশন স্পিকারের পিছনে শুধুমাত্র আপনার-আমার-আমাদের ফ্যান-ফলোয়ারের সাপোর্ট’ই তাদের আজকের দিনে সেলিব্রেটি শাহেনশাহ বানিয়েছে….
“সেলিব্রেটি পচিয়ে সেলিব্রেটি হওয়া” একটি সহজতম সমীকরণ তবে আমি এখানে তর্ক করতে আসিনি কিংবা সমালোচনাও করতে আসিনি; শুধুমাত্র বাংলাদেশের স্বাপেক্ষে মোটিভেশনের স্বরূপ তুলে ধরতেই উদাহরন দিলাম মাত্র।
বাংলাদেশে মোটিভেশন বিষয়টা হলুদ প্রশ্নবোধক চিহ্ন হলেও উন্নত বিশ্বে সাইকোলজিক্যালি মোটিভেশন বিষয়টি দৈনন্দিন জীবনেরই একটি অংশ; সেখানে একজন মানুষ টাকার বিনিময়ে সাইকিয়াট্রিস্টের (সাইকোলজি স্পেশালিষ্ট এর) নিকট কনসার্ন গ্রহণ করেন।
সুতরাং মোটিভেশনের সাথে ধনী-গরীবের কোন সম্পর্ক নেই; তবে সাঠিক ও কার্যকর মোটিভেশন একজন গরীবকেও ধনী মানুষে পরিণত করতে পারে; মূলত মোটিভেশন হলো সফলতার মহাঔষধ!
মোটিভেশন কোন প্যারাসিটামল নয়!
হাতুড়ে ডাক্তারেরা যেমন যেকোনো রোগেই প্যারাসিটামল প্রেসক্রাইব করেন; তেমনি খোলা মঞ্চে মাইক হতে পেলেই মাইকেল বনে যাওয়া মোটিভেশন স্পিকারেরা হাততালি পান বটে তবে হাততালি দেওয়া সেইসব হাতগুলিতে আদতেই কি সফলতার স্বর্ণপ্রদীপ পৌছায়???
আমরা প্রতিটি মানুষ ইউনিক-আমাদের সকলের ব্রেইন ইউনিক-আমাদের প্রত্যকের লাইফ ইউনিক-আমাদের প্রত্যেকের লাইফের সমস্যাগুলিও ইউনিক…..তাহলে আমাদের সমস্যার সমাধানও ইউনিক হওয়া উচিত।
তাই মোটিভেশন মানেই খোলা উপদেশ নয়, কেননা খোলা উপদেশের ভেতরটা প্রায়শ খেলো হয়!
[তবে হ্যা, কিছু কমন বিষয়ে মোটিভেশন সবার জন্যই প্রযোজ্য বটে]
লাইফে সফলতার জন্য ইচ্ছাশক্তি, ধৈর্য্য, পরিশ্রম এবং জ্ঞান প্রয়োজন” এই কথাগুলো আমরা সবাই জানি; এই কমন কথাগুলিই দৃষ্টান্ত আর উদাহরণ মিশিয়ে শ্রুতিমধুর করে উপস্থাপন করায় হলো মোটিভেশন।
আমি আবারো বলছি “আদর্শ মোটিভেশন ইউনিক হওয়া উচিত” তাই আমার এই লেখার মাঝেই যে আপনার লাইফের সকল সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে এমন মহা-মাদুলী বিক্রি করার নাম আর যায় হউক মোটিভেশন নয়।
আমাদের লাইফের জন্য শুধুমাত্র ইচ্ছাশক্তি+ ধৈর্য্য+পরিশ্রম+জ্ঞান হলেই চলবে না বরং সফলতার রাস্তায় এইসব ইলিমেন্ট কিভাবে ইউটিলাইজ করতে হবে সেই পথটাও তো দেখাতে হবে নাকি??
আমি বলতেই পারি যে “একটা সময় শাহরুখ খান মুম্বাই এর রাস্তায় রাস্তায় রাত কাটিয়ে গৌরির খোজে আজ সুপারস্টার হয়ে গিয়েছে” অথচ সেই সময়ে তার যেই বন্ধুটি সামান্য কয়টা টাকা দিতো সেটিই তাকে পথ চলার অনুপ্রেরণা আর শুকনা রুটিতে পেট ভরানোর মতোন শক্তি যুগিয়েছিলো; এটাই আদর্শ মোটিভেশন!
শুকনা কথাতে চিড়া ভিজতে পারে বটে তবে সফলতার জন্য শুধুমাত্র উপদেশ নয় বরং সঠিক পথের অনুসন্ধান দেওয়াও আবশ্যক।
আই এ্যাম দ্যা অনলি পারফেক্ট মোটিভেশনাল স্পিকার!
ইউটিউব- ফেসবুকে এতোসব সেলিব্রেটি মোটিভেশনাল স্পিকারের ভীড়ে কেবলমাত্র “আমিই একমাত্র পারফেক্ট মোটিভেশনাল স্পিকার” কথাটা শুনতে খুবই হাস্যকর লাগবে, কিন্তু আমি গ্যারান্টি দিয়ে বলছি আমিই একমাত্র পারফেক্ট মোটিভেশনাল স্পিকার…ইউ ক্যান ফেয়ার আদার ওয়াইজ থোরাই কেয়ার।
সত্যিই আমি পারফেক্ট মোটিভশনাল স্পিকার তবে সেটা আমার নিজের জন্য, ঠিক আপনার জন্যই পারফেক্ট মোটিভেশনাল স্পিকার যেমন আপনি নিজেই।
উদারণস্বরূপ আমার নিজের বাসার টয়লেট ছাড়া আমি অন্য কারো বাসার টয়লেট উইজ করতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করিনা; তাইবলে পথের মাঝে প্রাকৃতিক ডাক দিলে ঠিকই কিন্তু পাঁচ টাকা খরচ করে পাবলিক টয়লেটে প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিই!
বিষয়টা যতোই ঘেন্নার হউক আমি কিন্তু ঠিকই ইভ্যুউলুটেড হয়েছি আইমিন অভিযোজিত হয়েছি।
একইভাবে সমগ্র সমস্যা আর পরিস্থিতি মেকাবেলায় আপনার ব্রেইন স্বকীয়ভাবে মোটিভেশনের কাজ করে; আপনার প্রয়োজন শুধু “দুঃশ্চিন্তা” হতে “দুঃ” নামক দূরব্যাধি করে “চিন্তা” করা।
খুবই সহজ সলুউশান তাইনা??
আমাদের লাইফের সকল প্রকার হতাশা এবং সমস্যা সমাধানের জন্য দুইজন ফ্রি মোটিভেশন গাইড আছে (১) মন(মাইন্ড) আর (২) মাথা(ব্রেইন); তাদেরকে কাজে লাগিয়েই লাইফের সকল প্রবলেমের সলুউশান সম্ভব।
আসুন আমি ডেমো হিসেবে আপনাকে কিছু পথ বাতলে দিই…..
★সমস্যা: প্রেমে পড়েছি;এতে তো পড়াশোনার ক্ষতি হতে পারে। আবার মনের মানুষকে ভুলতেও পারছি না…কি করবো?
♦সমাধান: মোটেই তাকে ভুলে যাবার দরকার নেই; তবে পড়াশোনার টাইম ভুলে না গেলেই হলো। এইটুকু করতে পারলে গো এ্যাহেড….আদারওয়াইজ ফরগেট!
★সমস্যা: বাপের তো টাকা নাই তাইলে সায়েন্স নিয়ে কি করবো? ডাক্তার-ইঞ্জিনিয়ার হওয়া কি মুখের কথা নাকি?
♦সমাধান: আপনি সায়েন্সই নিন, বাপের টাকা না থাকলে টিইশান করে টাকা জমান। টিফিনে উপোষ করে টাকা জমান নইলে তিনবেলা না খেয়ে দিনে দুইবেলা খাবেন…একান্ত দরকার হলে দুয়ারে দুয়ারে হাত পাতবেন।
লজ্জা লাগবে? অথচ টাকার অভাবে যদি স্বপ্ন পূরণ করতে না পারেন সেই লজ্জা তো আজীবন বয়ে বেড়াতে হবে।
হাত এমনভাবে পাতুন যেন কাল আপনিও হাত উবুর করতে পারেন।
আর চূড়ান্ত সত্যটা হলো ইশ্বর স্বার্থপর নয়।
★সমস্যা: ধূর….লাইফটাই পানসা পানসা লাগে!!
♦সমাধান: নূন দিয়ে আমড়া কাইট্টা কাইট্টা খান; বুঝছেন? অর্থাৎ সময়টাকে কাজে লাগান। মানুষের যখন পরিশ্রমের তুলনায় অবসর বেশী হয় তখনই লাইফটা বোরিং বোরিং লাগে।
সুতরাং এমন কিছু করুন যেটা করতে ভালো লাগে এবং পকেটে কিছু টাকা আসে…এমনিই মনটা ভালো হয়ে যাবে।
আর ঘরে বসে শর্ট প্যান্ট পড়েও টাকা ইনকাম করার ওপেন প্লাটফর্ম হলো ই-ন-টা-র-নে-ট; এখন আপনি সেই নেটে ইন করবেন কিনা সেইটা আপনার ব্যাপার!
এমন করে বহু বহু সলুউশান লেখা যেতেই পারে; সেগুলি পড়ে হয়তো আপনার মনটাও ভালো লাগবে…কিন্তু আপনি যদি সেগুলি মাথাতে ইনপুট করে কাজে না লাগান তাহলে সবই সারশূন্য…..সো লেটস গো টু ওয়ার্ক।

Saturday, January 5, 2019

[Airtel Only] আপনার ফোনের ডাটা শেষ হয়ে গেলে ইন্টারনেট ও অটোমেটিক অফ হয়ে যাবে, আর হবেনা ইন্টারনেট চালাতে গিয়ে ব্যালেন্স খালি। কোন এপ্স ছাড়া

যেকোনো এয়ারটেল সিমে শুধু ডায়াল করুন *8444*9999# তারপর একটি ম্যাসেজ আসবে PPU Block এমন একটি এবং আপনি *8444*88# বা *3# এ গেলেও দেখবেন PPU Block Postpaid নামে ১ এমবির একটি প্যক চালু আছে যার মেয়াদ ১০ বছর। এই ১ এমবি কখনো শেষ হবেনা এবং এই প্যকটি জতদিন এক্টিব থাকবে আপনার ফোনে আপনি উক্ত সুবিধাটি ভোগ করতে পারবেন।
আজকে এই পর্যন্ত ভাল থাকবেন সবাই,

সজীব 

Friday, January 4, 2019

ফেইসবুক প্যাক দিয়ে KPN TUNNEL ব্যবহার করুন..

আসসালামু আলাইকুম...
 আজকে আমি আপনাদের সামনে নিয়ে আসলাম...
kpn tunnel
আর এটা দিয়ে আপনার হয়তো এর আগে ফ্রি নেট ইউজ করছেন।।
আর যারা পারেন না তাদের আমি খুব সহজেই বুঝিয়ে দিব।।
তো কাজ শুরু করা যাক,,,

প্রথমে প্লে স্টোর থেকে কেপিএন টানেল ডাউনলোড করে নিবেন




configuration DOWNLOAD now








আশা করি সবাই বুঝতে পারছেন...
আর যদি কারো বুঝতে সমস্যা হয় তাহলে কমেন্ট করবেন....
 আমি সলভ করার চেষ্টা করব.....
ধন্যবাদ সবাইকে.....
সজীব মিয়া

বিপিএল ২০১৯ সময়সূচী ও লাইভ স্কোর দেখতে এই অ্যাপটি ব্যবহার করে দেখতে পারেন।

কেমন আছেন সবাই। আশা সবাই করি ভালো আছেন।আজকে আপনাদের জন্য নিয়ে আসলাম অসাধারণ একটি অ্যাপ, এই অ্যাপ মাধ্যমে মোবাইলে  বিপিএল ২০১৯ সময়সূচী ও লাইভ স্কোর দেখতে পারবেন, আমরা খেলা পাগলরা কত ভাবে না লাইভ স্কোর দেখতে চাই, তা যদি হয় মোবাইলে কত ই না ভালো লাগে। আর তা যদি হয় অফিসের কাজের ফাঁকেফাঁকে বা দূরে কোথাও যাওয়ার সময় বাসে বসে বা বন্ধুদের আড্ডা ফাঁকেফাঁকে খেলা দেখা যেত কত না ভালো লাগতো। তাই বন্ধুরা আপনারা যারা ক্রিকেট খেলা ভালোবাসেন তারা এই অ্যাপ টি গুগল প্লে স্টোর থেকে ডাউনলোড করে দেখতে পারেন।তবে বন্ধুরা মনে রাখবেন কোন প্রকার রেজিস্ট্রেশন করতে হয় না এ অ্যাপটি ডাউনলোড  করতে।
Google play store Download 
https://play.google.com/store/apps/details?id=com.bpl2019.hitechtechnology
ধন্যবাদ সবাই ভালো থাকবেন।নতুন বছরের শুভেচ্ছা ।

Thursday, January 3, 2019

J.S.C রেজাল্ট দেখুন সবার আগে মার্কশিট সহ রেজাল্ট দেখুন কোন ঝামেলা ছাড়া একদম সহজে

আস্সালামু আলাইকুম
কেমন আছেন সবাই ট্রিকবিডির সাথে থাকলে সবাই ভালো থাকে
★ তো বেসি বক বক করে ফেলছি তো চলুন কাজের কথায় চলে যাই
★ আমরা সবাই যানি এই বৎসর J.S.C পরীক্ষা হয়েছিলো এবং পরীক্ষায় মোট ২০ লক্ষ ছাএ ছাএী আংশ নেই
★আর এই পরীক্ষার রেজাল্ট আগামী ২৪ এ ডিসেম্বর দেওয়া হবে আর এখন আমাদের অনেক সময় লাগে যে কি ভাবে রেজাল্ট দেখবো
★ আর সবার আগে রেজাল্ট দেখবেন কি ভাবে সেঠা বলবো প্রথামে Google Play tore থেকে E-Result, BD অ্যাপটা ডাউনলোড করে নিন অথবা নিচের লিংক থেখে অ্যাপ টা ডাউনলোড করুন

উপরের লিংক থেখে অ্যাপ টি ডাউনলোড করুন এখন প্রশ্ন হলো কি ভাবে রেজাল্ট দেখবেন নিচের স্কিনশট গুলো ফলো করুন
১.প্রথমে নিচের এই অ্যাপ টা ডাউনলোড হলে ওপেন করুন
২.অ্যাপ টি ওপেন করুন এবং ১ নম্বার এ কিল্ক করুন

৩.প্রথমে আপনার পরীক্ষার সিলেক্ট করুন। *তারপর বছর সাল দিন * তারপর আপানর বোডএর নাম সিলেক্ট করুন *
৪.এরপর নিচের খালি ঘরে ক্যাপচা টা দিয়ে গেট রেজাল্ট এ ক্লিক করুন এবং ৩০ সেকেন্ড ওয়েট করুন

৫.আশা করি আপনাদের কে বোঝাতে পেরেছি যদি কোন ধরনের বুঝতে সমস্যা হয় তা হলে একটু কষ্ট করে ভিডিও টা দেখতে পারেন আর যদি ভিডিও দেকতে না পারেন তা হলে আমাকে u এ নক করুন আশা করি আপানদের বোঝাতে সক্ষম হবো

Java এর জন্য অসাধারণ একটি সময় কাটানোর মত Train গেম


আজকের পোস্টে সবাইকে স্বাগতম ।সবাই কেমন আছেন ।আশা করি ভালো আছেন ।আপনাদের দোয়াই আমি ও ভালো আছি ।

এখনকার টপিক


আজ আমি জাভা ইউজার দের জন্য অসাধারণ একটি ট্রেন এর গেম নিয়ে এসেছি ।আজ আমি কিছুটা অসুস্থ ।কোনো কাজ করার মন বসতেছেনা ।তাই ছুটিতে থাকাই বসে বসে পোস্ট করতে শুরু করলাম । তবে এ গেমটি সম্পকে বেশি কিছু লিখতে পারব না ।তো কিছু বলার আগে আপনারা গেমটির কিছু স্ক্রিনসট দেখে নিন ।



গেমটিতে যা করতে হবে


আপনি স্ক্রিনসট এ দেখতে পেয়েছেন যে গেমটিতে তিনটি রেইল লাইন আছে এবং একটি ট্রেন ।ট্রেইন টা আপনার কোনট্রল এ থাকবে ।আপনি ট্রেইনটিকে বাম দিকে ডান দিকে ঘুরাতে পারবেন ।তো তিনটি রেইল লাইন এর মধ্যে মাঝখানের লাইন এ ট্রেন থাকবে ।আপনি দেখবেন যে ট্রেন টা চলা শুরু করার পর সামনে বাক আসবে ।ঐ বাক গুলোতে আপনাকে ঘুরতে হবে কিনা তা নির্ভর করবে ঐ লাইন এ ট্রেন আছে কিনা ।তা দেখে আপনাকে শেষ প্রযন্ত যেতে হবে ।তাহলে লেভেল কম্পলিট হবে ।
তো যদি খেলতে চান তাহলে নিচের থেকে ডাওনলোড করে নিতে পারেন ।আর একটা কথা আমি শুধু 240×320 এর লিংক দিলাম ।যেহেতু এটি আমি Jad থেকে Jar করেছি তাই শুধু ঐ স্ক্রিন এর দিলাম ।
আপনাদের কোন স্ক্রিন এর লাগবে তা কমেন্ট এ বলেন আমি দিয়ে দিব ।

নিয়ে নিন একটি অনুবীক্ষনযন্ত্র (Apk)।ছোট জিনিসকে বড় ও স্পষ্টভাবে পর্যবেক্ষন করুন

আসসালামুওয়ালাইকুম

আশা করি ভালোই আছেন।হ্যা, আমিও ভালো আছি।
apps revew নিয়ে হাজির হলাম,সেইরকম একটি এপ।যদি আপনার ফোনের Camera ভালো হয় তাহলেতো সেই মজা পাবেন এই app টি ইউজ করে
বন্ধুরা আমার ফোন ক্যামেরা মাত্র ২ মেগাপিক্সেল তাই স্ক্রীনসট গুলো ঘোলা হইছে।

Lets Start:

প্রথমে apps টি ইনষ্টল করে নিন।ডাউনলোড_
আশা করি ডাউনলোড করে ফেলেছেন।তাহলে এখন apps টি Open করুন, আর দেখুন Start app এ ক্লিক করে দিন_

দেখুন 5x,10x & 20x এর লেন্স দেওয়া আছে,প্রথমে 5x দিয়ে দেখুন
বন্ধুরা screenshot গুলো নেয়ার সময় হাত কাপছে তাই বেশি ঘোলা লাগছে_

এখন 10x দিয়ে দেখুন_

এখন দেখুন 20x দিয়ে দেখুন, আমার এখানে ছাগলটা অনেক দুরে ছিল। দেখুন কত কাছে চলে আসছে।আর বন্ধুরা আমিতো আগেই বলেছি আমার ক্যামেরা ২ মেগা। তাই ভালো দেখাচ্ছেনা।

তো বন্ধুরা উপভোগ করো এই অনুবীক্ষন এপসটি।

আর হ্যা অবশ্যই বাজে কমেন্ট করবেননা।

কিভাবে বজ্রপাত থেকে নিজেকে রক্ষা করবেন??



আসসালামু আলাইকুম।

সবাই কেমন আছেন?

আল্লাহর রহমতে আমি ভালোই আছি


বরাবরের মতো আমি আজকেই একটি পোস্ট নিয়ে হাজির হয়েছি । কি সম্পর্কে আজকে আমি পোস্ট করেছি তা আপনারা টাইটেল দেখেই বুঝে গিয়েছেন। তো আমি পোস্টের শুরুতে বেশি কথা বলবো না। 

আজ আমার পোস্টের মূল বিষয় হলো বজ্র নিরোধক দন্ড সম্পর্কে। তো চলুন সরাসরি বিস্তারিত পোস্টে চলে যায়।



বিস্তারিত পোস্টঃ

বজ্রপাতের উচ্চ মাত্রার বিদ্যুৎ প্রবাহ অনেক সময় ৪০০ কিলো অ্যাম্পিয়ার ছাড়িয়ে যায়। এত উচ্চমাত্রার বিদ্যুৎ প্রবহের ফলে তাপমাত্রা ৫০,০০০ ডিগ্রি ফারেনহাইট বা ২৭,৭৬০ ডিগ্রি সেলসিয়াসে পৌঁছাতে পারে। এই প্রচণ্ড উত্তাপে আগুন ধরে যেতে পারে, মানুষসহ জীবজন্তু মারা যেতে পারে। বাড়িঘরের বৈদ্যুতিক সরঞ্জামও বজ্রপাতের ফলে নষ্ট হয়ে যেতে পারে। বজ্রপাত থেকে বাড়ি-ঘর সুরক্ষিত রাখতে যে ব্যবস্থাগুলো নেয়া হয় তার মধ্যে বজ্র নিরোধক দণ্ড অন্যতম।


বজ্র নিরোধক দণ্ড যেভাবে কাজ করেঃ

প্রচলিত একটি ধারণা হচ্ছে বজ্র নিরোধক দণ্ড বজ্রপাত আকর্ষণ করে। আসলে বিষয়টি সেরকম নয়। বজ্র নিরোধক দণ্ড দূর থেকে বজ্র বিদ্যুৎ টেনে আনে না। এটি থাকুক আর নাই থাকুক বজ্র বিদ্যুৎ যেখানে আঘাত করার যেখানেই আঘাত করবে। বজ্র নিরোধক দণ্ডের কাজ হচ্ছে উচ্চমাত্রার বিদ্যুতকে সহজে নিরাপদে মাটিতে পৌঁছানোর সুযোগ করে দেয়া।
তামা, অ্যালুমিনিয়াম প্রভৃতি ধাতুর বৈদ্যুতিক রোধের মাত্রা অনেক কম। তাই সাধারণত এসব ধাতু দিয়েই বজ্র নিরোধক দণ্ড তৈরি করা হয়। মোটামুটিভাবে দুই সেন্টিমিটার ব্যাসের তামা বা অ্যালুমিনিয়ামের তৈরি ধাতব দণ্ড ভবনের ওপর খাড়াভাবে বসিয়ে দেয়া হয়। আর সেটি এক ইঞ্চি বা কাছাকাছি ব্যাসের পরিবাহী তারের মাধ্যমে ভূমিতে সংযুক্ত রাখা হয়।



প্রবাহের সময় বাধা না পেলে বিদ্যুৎ প্রবাহের ফলে পরিবাহী উত্তপ্ত হয় না, ফলে আগুন ধরার ঝুঁকিও থাকে না। বজ্র নিরোধক দণ্ড এ কাজটিই করে দেয়। বজ্র বিদ্যুৎ সরাসরি বজ্র নিরোধক দণ্ডে আঘাত করলে তো সমস্যাই নেই আর কাছাকাছি আঘাত করলেও কম রোধের পথ পাওয়ার কারণে (বজ্র নিরোধক দণ্ডের কারণে) সে বিদ্যুৎ লাফিয়ে বজ্র নিরোধক দণ্ড পর্যন্ত পৌঁছায় এবং সেখান থেকে মাটিতে চলে যায়।

ছাদে লোহার রেলিং থাকলে সেটি কি বজ্র নিরোধক দণ্ডের কাজ করবে? না। লোহার রেলিংকে তামার তারের মাধ্যমে মাটিতে সংযুক্ত করা হয় না তাই এটি বজ্রপাতের বিপদ এড়াতে পারবে না। তাছাড়া বজ্র নিরোধক দণ্ড হিসেবে তামা এবং অ্যালুমিনিয়াম ধাতু লোহার চেয়ে বেশি কার্যকর।

প্রাকৃতিক সুরক্ষাঃ

গ্রামাঞ্চলের ছোট ছোট বাড়ি-ঘরকে সুরক্ষা দেয়ার ক্ষেত্রে তালগাছের মত উঁচু গাছ বেশ কাজে আসে। কাছাকাছি পরিবাহী পদার্থ পাওয়ার কারণে বজ্র বিদ্যুৎ বাড়ি-ঘরের বদলে গাছকে আঘাত করে।

তো আজ এই পর্যন্তই। সবাই ভালো থাকবেন সুস্থ থাকবেন এই কামনা নিয়ে আজকের মতো এখানেই বিদায় নিচ্ছি।

★যদি কোনো সমস্যা বা দরকার হয় তাহলে আমার সাথে যোগাযোগ করুন নিম্নউক্ত মাধ্যমেঃ

★Email: [email protected]

.

.
★Facebook

আল্লাহ হাফেজ

ধন্যবাদ সবাইকে

কিভাবে যে কোন মেয়ের সাথে লজ্জা -ভয় দূর করে Confidently সাহস এবং ভদ্রতার সাথে কথা বলতে পারবেন। 5 টি বিশেষ Tips


হ্যালো বন্ধুরা কি খবর সবার?
বন্ধুরা আজ আমি একটু ভিন্ন বিষয়ে পোস্ট লিখতে বসলাম জানিনা কেমন লাগবে তবে একটু পড়ে দেখতে পারেন কাজে আসতে পারে।
আচ্ছা বন্ধুরা এই ফেসবুক ইনস্টাগ্রাম আদার্স সোশ্যাল মিডিয়া আমাদের চ্যাট করার স্কিল তো অনেক ইম্প্রুভ হয়েছে।
কিন্তু তার সাথে সাথে এই যে রিয়েল লাইফে কমিনিউশন স্কেল। অর্থাৎ সামনাসামনি কথা বলার যে কারোর সাথেই সেটির ক্ষমতা কিন্তু ডি ক্রিস হয়েছে।
এ্যাবসল্যুটলী রাইট এন্ড শুধুমাত্র মেয়েরা কেন এমন অনেকের সাথে আমরা কথা বলতে লজ্জা পাই। ভয় পাই যে সে কিনা কিভাবে কিরকম রিঅ্যাক্ট করবে। আর যখনই কথা বলতে যায় আমাদের সেল কনফিডেন্ট কমে আসে আমাদের আত্মবিশ্বাস কমে আসে।
আর শুধু থাকে লজ্জা আর ভয় কিন্তু আর নয় কারণ আজকের এই পোস্টের মাধ্যমে পাঁচটি টিপস। তোমরা জানতে পারবে আমি তোমাদের সাথে শেয়ার করব যেগুলি যখনই কারো সাথে কথা বলবে কনভাসেশন ই সেগুলি যদি সামান্য তোমার মাথায় রাখ অথবা এপ্লাই করে নাও।
তাহলে দেখবে কিছুদিনের মাত্র কিছুদিনের মধ্যেই তোমার কম্বিনেশন স্কিল আরো হাই হয়ে যাবে তোমার আরো কনফিডেন্ট আসবে যে কারো সাথে কথা বলার জন্য।
আর লজ্জা ভয় টোটালি ভ্যানিশ তাহলে বন্ধুরা আর দেরি কেন Without string any for the time let’s get started.
তো বন্ধুরা at first let’s talk about tape number 1.
১. control your insecurities
এ বাবা মেয়েটার সাথে কথা বলবো যদি কথা না বলে যদি সামনে গিয়ে কোন কথা মাথায় না আসে যদি মেয়েটা গালে চড় মেরে দেয়। না না না না না মেয়েটির যদি বয়ফ্রেন্ড থাকে। না বাবা এর থেকে এক দান পাবজি খেলে আসা যাক আমার দ্বারাই হবে না।
বুঝলে তো প্রবলেম টা কোথায় হচ্ছে এই আত্মবিশ্বাসের অভাব আমাদের self down কিন্তু আমাদের প্রথম স্টেপটাই পার করতে বাধা দিচ্ছে। এটা অলওয়েজ খেয়াল রাখবে যে মেয়েদের মধ্যেও কিন্তু সেম insecurities সেম self doubt রয়েছে প্রথমে তারা কিছু শো করবে না।
প্রথম তারা একদম নর্মাল থাকবে কিন্তু কিছুদিন তোমার ফ্রেন্ডশিপ টা এগোবে তারপর তাকে জিজ্ঞেস করবে তখন দেখবেন সেগুলি দিবে হ্যাঁ তোর সাথে কথা বলতে লজ্জা পাচ্ছিলাম। অথবা তোমার সাথে কিভাবে কথা বলব ভয় পাচ্ছিলাম তুমি কিভাবে রিয়্যাক্ট করে দাও এইসব কিন্তু তাদের মধ্যেও চলে।
তো বন্ধুরা no insecurities self doubt ভয় লজ্জা টোটালী ভুলে ফাস্ট স্টেপ তার সাথে কথা বলতে এগিয়ে যাও।
নাও এবার তুমি কথা বলতে মেয়েটির কাছে এগিয়ে গেলে কিন্তু মাথায় আসলো যে কি নিয়ে কথা বলবো। কি কোশ্চেনস তাকে করব এখানে মাই ফ্রেন্ড তোমাকে এপ্লাই করতে হবে স্টেপ নাম্বার টু।
2. Use complement
কম্প্লিমেন্ট অর্থাৎ প্রশংসা দিয়ে কথার শুরু কর মেয়েরা কিন্তু ভীষণ পছন্দ করেন কম্প্লিমেন্ট পাওয়া কোন ছেলের কাছ থেকে আর শুধু মেয়েরা কেন সবাই পছন্দ করে আমিও পছন্দ করি।
কিন্তু বন্ধুরা এই যে যখনই কম্প্লেমেন্ট দিবে প্রশংসা করবে খেয়াল রাখবে সেটা যেন respectable হয় অর্থাৎ সম্মানের যোগ্য হয় সেটি যেন sexual creepy compliment একদমই যেন না হয়।
তাহলে ফাস্ট impression এ তোমাকে সে ফ্রেন্ড লিস্ট থেকে বাইর করে দিবে এটি অলওয়েজ খেয়াল রাখবে।
Hi Girl you are looking sexy, my babes you are looking so hot, you are looking damn sexy.
হাই আমি ইমরান আচ্ছা একটা কথা আমি তোমায় বলতে চাই যে লাল ড্রেসআপ টা তুমি পরেছো দারুন মানাচ্ছে আর সিরিয়াসলি আর যে হেয়ার স্টাইলটা জানিনা কোন পার্লার থেকে করেছ। তবে তোমার লুকস এর সাথে কিন্তু হেয়ার স্টাইলটা perfect লাগছে trust me
যখনই তুমি তার প্রশংসা করবে তোমার সেল্ফ কনফিডেন্ট তোমার আত্মবিশ্বাস দেখবে অটোমেটিক্যালি বুষ্ট হয়ে গেছে। আর সেখানে ভয় লজ্জা টোটালি দূর হয়ে যাবে এই একটাই ষ্টেপ এই কিন্তু।
remember but my friend always give compliment vikey a gentleman. ok so তোমার insecurities গুলো তুমি কন্ট্রোল করে তার সাথে কথা বলতে গেলে তার প্রশংসাও করলে that’s very good.
এবার স্টেপ নাম্বার 3 তোমার মেন্টেন করতে হবে বডি ল্যাঙ্গুয়েজ এই বডি ল্যাঙ্গুয়েজ কিন্তু এমন একটি Nonverbal communication যার মাধ্যমে জাস্ট কিছু সেকেন্ডের মধ্যেই কিন্তু যে কেউ বুঝতে পারবে। তুমি মিথ্যে কথা বলছো কি না তুমি ফ্লাট করছো কিনা তোমার মধ্যে কনফিডেন্ট রয়েছে কিনা তোমার ব্যক্তিত্ব তোমার পার্সোনালিটি কেমন তুমি সত্যি কথা বলছ কি না এই ফিরছি কিন্তু রাষ্ট্র কিছু সেকেন্ডের মধ্যেই কেউ বুঝতে পারবে।
অথবা mehsoos করতে পারবে তোমার বডি ল্যাঙ্গুয়েজ দেখে তাই যখনই কারো সাথে কথা বলবে তিনটি জিনিস তুমি অলওয়েজ খেয়াল রাখবে নাম্বার ওয়ান body postures কিভাবে তুমি তার আছো তোমার মেরুদন্ড stress আছে কিনা সোজা আছে কিনা তোমার বুকটা সামান্য এগিয়ে দিবে একদম stressed দাঁড়াবে হাতের নড়াচড়া কিন্তু একদমই অহেতু করবে না।
নাম্বার টু হচ্ছে আই কন্টাক কিভাবে তার দিকে তুমি তাকাচ্ছ চোখে চোখ রাখা কিন্তু খুবই সুন্দর একটি কমিউনিকেশন এটিকে কখনো উল্টোপাল্টা একদমই করবে না একদমই তার দিকে তাকিয়ে থাকবে না। আবার একদমই নিচের দিকে অথবা অন্য দিকে তাকাবে না।
তার চোখের দিকে তাকাও কিন্তু একটা ফুল্ল ভাবে মাঝে মাঝে তাকাও মাঝে মাঝে অন্য দিকে তাকাও কিন্তু আই কন্ট্রাক্ট কিন্তু অবশ্যই করতে হবে কমিউনিকেশন এ যেটি খুবই ইম্পরট্যান্ট।
এবং লাস্ট হচ্ছে স্মাইল তোমার হাসি নকল হাসি একদমই দেবে না একটা ছোট্ট সুইট স্মাইল কনফিডেন্ট এর সাথে হাসো কিন্তু সেটি যেন অত্যাধিক হা হা হা কার হাসিনা হয় সুইট স্মার্ট হাসি যেন হয়।
কারণ মনে রাখবে মেয়েরা কিন্তু সিরিয়াস পার্সেন্ট একদমই পছন্দ করে না এবং যেখানে বডি ল্যাঙ্গুয়েজ সঠিক রয়েছে। সেখানে লজ্জা ভয় টোটালি দূর হয়ে কনফিডেন্ট কিন্ত stuck পেয়ে যাবে।
তাহলে বন্ধুরা এবার স্টেপ নাম্বার ফোর দেখা যাক.
4. wishes backup questions
অনেক সময় আমাদের কথা বলতে ইচ্ছে করলেও কি বিষয় তার সাথে কথা বলবো কি ট্রপিক এ কথা বললে বোরিং ফিল করবে না অথবা conversation করছি কথা বলা স্টার্ট করছি কিন্তু তার মাঝখানে ভুলে যাই যে কি ট্রপিকে কথা বলে।
conversation টাকে আরও এগিয়ে নিয়ে যাবো তাই এমন কিছু questions আগে থেকেই mentally তুমি রেডি করে রাখ যে যখনই কথা বলা একটু পজ আসবে একটু থেমে যাবে। তখন তোমার যাতে ভাবতে না হয় সেই সব কোশ্চেন্স গুলি নিয়ে conversation কে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারো।
লাইক মেয়েদের অনেক ট্যালেন্ট থাকতে পারে সেই ট্যালেন্টটা নিয়ে তার কাছে আক্স কর তারা হবিস নিয়ে অথবা through তোমরা মেট করেছ.
হতে পারে কোচিং সেন্টার কলেজে বিয়ে বাড়ি স্কুলে অথবা কোন বার্থডে পার্টি নর্মাল পার্টিতে যেখানেই হোক না কেন সেই রিলেটেড কোন কোশ্চেনস করলে এটা অলওয়েজ খেয়াল রাখবে।
যে যেই ট্রাফিক এই কথা বলবে না কেন সেটা যেন তার ও ইন্টারেস্ট থাকে সাপস তোমার ক্রিকেটে খুবই ইন্টারেস্ট তুমি ক্রিকেটের কোন ট্রপিক তুললে কিন্তু মেয়েটা তো একদমই ক্রিকেটে ইন্টারেস্ট নেই। তখন সে কোনো রিয়্যাকশন দিবে না মেয়েটাকে তুমি বোরিং করবে।
তার থেকে এমন একটি ট্রপিক বোঝার চেষ্টা কর যাতে সে ইন্টারেস্ট পাবে তার কোন hobbies অথবা সে কোথাও ঘুরতে গেছে এক্সাইটিং কোথাও। সেইসব ট্রাফিক এ questions করো তাহলে দেখবে আলোচনাকে কিন্তু অনেক দূর তুমি নিয়ে যেতে পারবে।
এবং যখনি তার সাথে কথা বলার টপিক তোমার রেডি থাকবে তুমি জানো যে তার সাথে তুমি কি কি ট্রফিক কে কথা বলতে চাও। তাহলে তোমার কনফিডেন্স আসবে তোমার ভয় করবে না তোমার লজ্জা করবে না তার সাথে কথা বলতে।
now time for last tip tip number 5 I think এটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ যে কোন ক্ষেত্রে সেটি হল।
5. honesty
লাইফে কাউকে পেতে গেলে হতে পারে তার বন্ধুত্ব তার ভালোবাসা তোমার কিন্তু অলওয়েজ তার প্রতি honest থাকতে হবে। যা তোমার মনে আসে honestly তার সাথে শেয়ার করে দাও।
তাহলে বন্ধুরা এই সিম্পেল পাঁচটি স্ট্রিপ যখনই কারো সাথে কথা বলবে কনভাসেশন এ কিছুই করতে হবে না। এই সিম্পল পাঁচটি টিপস একটু মাথায় জাস্ট ঘোরাবে দেখবে কয়েকদিনের মধ্যেই এগুলি তুমি এপ্লাই করতে শুরু করেছো।
তুমি realise ও করবে না কনভাসেশন এ তোমার কারো সাথে কথা বার্তায় সেগুলি সো হতে থাকবে আর এর রেজাল্ট তুমি চুটকিতে মানে immediately রেজাল্ট নোটিশ করতে পারবে। তাহলে বন্ধুরা I think all clear ? আজকের জন্য বাস এইটুকু থাক।
পোস্টটি ভাল লাগলে একটি লাইক করতে পারেন পোস্টটি পড়ে কেমন লাগলো জানাতে পারেন নিচের কমেন্ট বক্সে আর শেয়ার করে আপনার বন্ধুকে দেখার সুযোগ করে দিন।
আর আপনি যদি এমনই আনকমন এবং ইন্টারেস্টিং পোস্ট ভবিষ্যতেও দেখতে চান তাহলে সেটিও জানাতে পারেননি।
তো দেখা হচ্ছে নতুন কোন পোষ্টে ততক্ষণ পর্যন্ত ভালো থাকবেন ধন্যবাদ।

Featured Post

[Brute force attack] wifi hacking without root[termux] by sojib

আসসালামুলাইকুম.. আশা করি সবাই ভালো আছেন.. বেশ কিছুদিন পর আবারো হাজির হলাম ছোট্ট একটি হ্যাকিং টুল নিয়ে.. আশা সবার ভালো লাগবে..মনেযোগ দিয়ে প...